Amardesh Online......................
আজ মঙ্গলবার, ৩০ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৪ জুলাই ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
চিরস্থায়ী বাংলা ক্যালেন্ডার
ধেয়ে আসছে সুপারবাগ মহামারি
92nd Prizebond Draw, 31 Jul 2018

Pregnancy Care
Check your IP
Public Universities
Private Universities
Intl. Universities in BD
350 MP List
Local E-Commerce Sites
Banks in Bangladesh
Bangladesh Post Codes
Airlines in Bangladesh
Shahjalal Airport Arrival
Shahjalal Airport Departure
Osmani Airport Arrival
Osmani Airport Departure

১৪ জুলাই: ইতিহাসের এই দিনে-

ঘটনাবলী

  • ১২২৩ সালে অষ্টম লুই ফ্রান্সের রাজা হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন।
  • ১৫৫৩ সালে সম্রাট পঞ্চম চার্লস তিউনিস জয় করেন।
  • ১৬৩৬ সালে সম্রাট শাহজাহান আওরঙ্গজেবকে দাক্ষিণাত্যের রাজপ্রতিনিধি নিয়োগ করেন।
  • ১৭৮৯ সালে বাস্তিল দুর্গের পতনের ভেতর দিয়ে ঐতিহাসিক ফরাসি বিপ্লব সংঘটিত হয়।
  • ১৭৯৯ সালে সিলেটের আগা মোহাম্মদ রেজা বেগ ‘ফিরিঙ্গি হুকুমত’-এর বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা করে সম্মুখযুদ্ধে লিপ্ত হন।
  • ১৮৬১ সালে বিশ্বের প্রথম মেশিনগান তৈরী করা হয়।
  • ১৮৬৭ সালে আলফ্রেড নোবেল প্রথমবারের মতো ডিনামাইটের কার্যকারিতা প্রদর্শন করেন।
  • ১৯১৭ সালে ফিনল্যান্ডের স্বাধীনতা ঘোষণা করা হয়।
  • ১৯১৮ সালে টর্নেডোর আঘাতে ভূমধ্যসাগরে ডেমনা জাহাজ ডুবে গেলে ৪৪২ জনের মৃত্যু হয়।
  • ১৯২৭ সালে হাওয়াইতে প্রথম বাণিজ্যিক বিমান চালু হয়।
  • ১৯৩০ সালে বিবিসি সর্বপ্রথম টেলিনাটক সম্প্রচার করে।
  • ১৯৪২ সালে কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটি ব্রিটিশবিরোধী ঐতিহাসিক ‘ভারত ছাড়ো’ আন্দোলনের প্রস্তাব গ্রহণ করে।
  • ১৯৪৮ সালে ইসরায়েল কায়রোতে বোমা হামলা করে।
  • ১৯৫৮ সালে জেনারেল আব্দুল করিম কাসেমের নেতৃত্বে সামরিক অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে ইরাকের রাজতান্ত্রিক সরকারের পতন ঘটে এবং প্রজাতান্ত্রিক ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠিত হয়।
  • ১৯৬৯ সালে এল সালভাদরের কাছে একটি ফুটবল ম্যাচে পারাজয়ের পর হন্ডুরাস ও হন্ডুরাসে এল সালাভাদরের অভিবাসী শ্রমিকদের মধ্যে দাঙ্গা বাধে।
  • ১৯৭৩ সালে জাতীয় সংসদে বাংলাদেশের সংবিধানের প্রথম সংশোধনী বিল গৃহীত হয়।
  • ১৯৮৪ সালে নিউজিল্যান্ডের নির্বাচনে ডিভিড লদীর নেতৃত্বে লেবার পার্টি জয় লাভ করে।
  • ১৯৯৭ সালে কে আর নারায়ণ প্রথম অচ্ছুৎ সম্প্রদায় থেকে ভারতের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন।

জন্ম

  • ১৪৫৪ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন পলিযিয়ান, তিনি ছিলেন ইতালীয় কবি ও পণ্ডিত।
  • ১৬০২ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন কারডিনাল মাযারিন, তিনি ছিলেন ইতালিয়ান বংশোদ্ভূত ফরাসি রাজনীতিবিদ।
  • ১৭৪৩ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন গ্যাবিব্রলা রোমানোভিচ দারজাভিন, তিনি ছিলেন রুশ কবি।
  • ১৮১৬ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন আর্থার ডি গবিনেয়াউ, তিনি ছিলেন ফরাসি লেখক ও কূটনীতিক।
  • ১৮৬২ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন গুস্টাভ ক্লিমট, তিনি ছিলেন অস্ট্রিয়ান চিত্রশিল্পী ও অঙ্কনশিল্পী।
  • ১৮৮৯ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন আন্টে পাভেলিক, তিনি ছিলেন ক্রোয়েশীয় আইনজীবী, রাজনীতিবিদ ও ১ম পররাষ্ট্রমন্ত্রী।
  • ১৯০৩ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন আর্ভিং স্টোন, তিনি ছিলেন আমেরিকান লেখক।
  • ১৯১০ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন উইলিয়াম হানা, তিনি ছিলেন আমেরিকান অ্যানিমেটর, পরিচালক, প্রযোজক, অভিনেতা ও সহ-প্রতিষ্ঠাতা হানা-বারবেরার।
  • ১৯১৩ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন ফ্রিৎজ আর্থার, তিনি ছিলেন জার্মান রাজনীতিবিদ।
  • ১৯১৩ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন জেরাল্ড ফোর্ড, তিনি ছিলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৩৮তম রাষ্ট্রপতি।
  • ১৯১৮ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন ইংমার বার্গম্যান, তিনি ছিলেন সুইডিশ মঞ্চ ও চলচ্চিত্র নির্দেশক।
  • ১৯২১ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন জিওফ্রে উইল্কিন্সন, তিনি ছিলেন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ইংরেজ রসায়নবিদ।
  • ১৯৩৭ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন ইয়শিরো মরি, তিনি জাপানি সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ ও ৫৫ তম প্রধানমন্ত্রী।
  • ১৯৩৯ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন ক্যারেল গত্ত, তিনি চেক গায়ক, গীতিকার ও অভিনেতা।
  • ১৯৪৭ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন নাভিন রামগোলাম, তিনি মরিশাসের চিকিৎসক, রাজনীতিবিদ ও ৩য় প্রধানমন্ত্রী।
  • ১৯৬০ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন জেন লিঞ্চ, তিনি আমেরিকান অভিনেত্রী ও টক শো হোস্ট।
  • ১৯৭১ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন হাওয়ার্ড ওয়েব, তিনি সাবেক ইংরেজ ফুটবল খেলোয়াড় ও রেফারি।
  • ১৯৮৩ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন ইগর এন্ডরেভ, তিনি রাশিয়ান টেনিস খেলোয়াড়।
  • ১৯৮৪ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন নিলমার, তিনি ব্রাজিলিয়ান ফুটবলার।
  • ১৯৮৪ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন সমীর হান্ডানোভিক, তিনি স্লোভেনীয় ফুটবলার।
  • ১৯৮৭ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন অ্যাডাম জনসন, ইংরেজ ফুটবল খেলোয়াড়।

মৃত্যু

  • ১২২৩ সালে মৃত্যুবরণ করেন দ্বিতীয় ফিলিপ, তিনি ছিলেন ফ্রান্সের রাজা।
  • ১৮১৭ সালে মৃত্যুবরণ করেন গেরমাইনে ডে স্টায়েল, তিনি ছিলেন ফরাসি দার্শনিক ও লেখক।
  • ১৯০৪ সালে মৃত্যুবরণ করেন পাউল ক্রুগার, তিনি ছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার রাজনীতিবিদ ও ৫ম প্রেসিডেন্ট।
  • ১৯০৭ সালে মৃত্যুবরণ করেন স্যার উইলিয়াম হেনরি পারকিন, তিনি ছিলেন রসায়নবিদ ও উদ্ভাবক।
  • ১৯১০ সালে মৃত্যুবরণ করেন মারিউস পেটিপা, তিনি ছিলেন ফরাসি ড্যান্সার ও কোরিওগ্রাফার।
  • ১৯৫৪ সালে মৃত্যুবরণ করেন জাকিন্ট বেনাভেন্টে, তিনি ছিলেন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী স্প্যানিশ নাট্যকার।
  • ১৯৫৮ সালে মৃত্যুবরণ করেন দ্বিতীয় ফয়সাল, তিনি ছিলেন ইরাকের তৃতীয় ও শেষ বাদশাহ।
  • ১৯৬৫ সালে মৃত্যুবরণ করেন দ্বিতীয় আডলাই স্টিভেনসন, তিনি ছিলেন আমেরিকান সৈনিক, রাজনীতিক ও ৫ম জাতিসংঘে রাষ্ট্রদূত।
  • ১৯৬৮ সালে মৃত্যুবরণ করেন কনস্টানটিন পাউস্টোভস্কাই, তিনি ছিলেন রাশিয়ান লেখক ও কবি।
  • ১৯৮৫ সালে মৃত্যুবরণ করেন দেবপ্রসাদ ঘোষ, তিনি ছিলেন গণিতজ্ঞ, শিক্ষাব্রতী ও রাজনীতিবিদ র মৃত্যু।
  • ২০০২ সালে মৃত্যুবরণ করেন জয়াকুইন বালাগুয়ের, তিনি ছিলেন ডোমিনিকান আইনজীবী, রাজনীতিবিদ ও ৪১ তম প্রেসিডেন্ট।
  • ২০১২ সালে মৃত্যুবরণ করেন মাজহারুল ইসলাম, তিনি ছিলেন বাংলাদেশ তথা ভারতীয় উপমহাদেশের প্রথিতযশা স্থপতিদের মধ্যে অন্যতম।

১৪ জুলাই: মুক্তিযুদ্ধের এই দিনে-

  • পাকিস্তান বাহিনীর বেলাব আক্রমণ প্রতিহত করার লক্ষ্যে সুবেদার বাশারের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধা দল বেলাবর নিকটবর্তী এলাকা টোকের কাছে অ্যামবুশ তৈরি করে। বিশ্বাসঘাতকদের সহযোগিতায় হানাদার বাহিনী অ্যামবুশের কথা জানতে পারে। ফলে তারা লঞ্চে না এসে নৌকাযোগে মুক্তিযোদ্ধাদের অবস্থান অতিক্রম করে। পরে একটি খালি লঞ্চ এলে মুক্তিযোদ্ধারা সেটিকে পাকিস্তানি সেনাবাহী মনে করে গুলিবর্ষণ শুরু করেন। অপর দিকে মুক্তিযোদ্ধাদের গুলিবর্ষণের সঙ্গে সঙ্গে হানাদার সেনারা পেছন থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের ঘিরে ফেলে। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে কয়েক ঘণ্টা গুলিবিনিময় হয়।
  • কুড়িগ্রামে মুক্তিবাহিনীর একদল গেরিলা পাকিস্তান বাহিনীর বড়খাতা অবস্থানের ওপর আক্রমণ চালান। এতে হানাদার বাহিনীর ব্যাপক ক্ষতি হয়। অপর দিকে মুক্তিযোদ্ধা সিপাহি মুহাম্মদ আলী বর্বরদের গুলিতে শহীদ হন।
  • ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী জগজীবন রাম লোকসভায় বলেন, একটি জিনিস আমাদের কাছে পরিষ্কার হয়ে গেছে, আর তা হলো মুক্তিফৌজের সাহসিকতার ফলে শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ একদিন স্বাধীন হবেই।
  • ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সরদার শরণ সিং লোকসভায় বলেন, পশ্চিম পাকিস্তানের শাসকচক্র বাংলাদেশের জনগণের ভাবাবেগের ওপর জঘন্য সামরিক হস্তক্ষেপের ফলে তার ঔপনিবেশিক চক্রান্তের মুখোশ খুলে পড়েছে। তিনি আরো বলেন, ভারত সরকার মনে করে, বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে যারা পাকিস্তানকে অস্ত্র সরবরাহ করছে, তারা পক্ষান্তরে পাকিস্তানের সামরিক শাসকদের বাঙালি জনগণের ওপর নির্যাতন চালিয়ে যাওয়ায় উৎসাহ দিচ্ছে। পাকিস্তানের সামরিক শাসকরা বাংলাদেশের জনগণের ব্যাপারে অযথা হস্তক্ষেপ করছেন বলে সরকার মনে করছে।